তদন্তের এক পর্যায়ে অবশেষে বেরিয়ে এলো সেদিন ঢাকা রাজধানীর মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ’ও’ /লেভেলের শিক্ষার্থী আনুশকার সাথে কি কি ঘটে/ছিল। জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (০৮ জানুয়ারি) অনুশকাকে ফাকা নাসায় নিয়ে অ/সামা/জি/ক ক/র্ম/কা//ণ্ডে লী/প্ত হওয়ার পর /অব/স্থা গু/রু/ত/র দেখে হাস/পাতা/লে নেয়ার পথেই /প্রাণ হা/রা/ণ আনুশকা। আনুশকার /মৃ/ত্যু/র/ /পরপ/রই হ/ত/বি/হ্বল হ/য়ে পড়ে অভিযুক্ত ফা/রদি/ন ইফতেখার দিহান। হা/সপা/তালে যাওয়ার পরেই /আ/নুশ/কার /মৃ/ত/দে/হ রে/খে পা/লাতে চেয়েছিল সে।

কিন্তু সময় এবং সুযোগ কোনোটাই পায়নি। ততক্ষণে পুলিশ তার তিন বন্ধুসহ চারজনকে আটক করে। গত শুক্রবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে ঘটনার আদ্যো/পান্ত বর্ণনা দিয়েছে ফারদিন। ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে মা/ম/লা/র পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ২৬শে জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত।

/জবান/বন্দি গ্র/হণ শেষে আ/দালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। ত/দন্ত /সংশ্লিষ্ট সূত্র পৃষ্ঠা ৭ কলাম ৩ জানায়, জবান/ব/ন্দি/তে ফারদিনের দেয়া ত/থ্য/ম/তে ই/ন/স্ট্রা/গ্রা/মে/র মাধ্যমে তাদের গত দু/ই থেকে তিন মাস আগে পরিচয় হয়।

সূত্র জানায়, ডলফি/ন গলির বাসায় ফারদিন, তার বড় ভাই, গ্রামের দূর সম্পর্কের এক চাচাতো ভাই থাকেন। এবং তার বাবা আ/রেক ভাইকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি রাজশাহীতে থাকেন। তিনি অবসরপ্রাপ্ত জেলা রে/জিস্ট্রার। ফারদিনের নানা অ/সু/স্থ হওয়ায় ঘটনার দিন তার মা নানাকে দেখতে ব/গুড়া/য় যান। তাই আগের দিন মুঠোফোন ম্যাসেঞ্জারে চ্যাট করার সময় ফারদিন আনুশকাকে জানায় তার বাসা খালি থাকবে। চাইলে সে আসতে পারে। ফারদিন জানিয়েছে, আনু/শকা বেলা সাড়ে ১১টায় তার মা’কে /ফারদিনের বাসায় যাওয়ার কথা জানিয়ে বাসা থেকে বেরিয়ে যায়।

এ সময় তিনি আনুশকাকে দুপুরের খাবার কিনে দেয়ার কথা বললেও তারা নেয়নি। পরবর্তীতে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরের মেট্রো শ//পিংম/লের কাছ থেকে আনুশকাকে সঙ্গে নিয়ে ফারদিন কলাবাগান মোড়ে লাজফার্মার কাছে রেখে সে একা বাসায় প্রবেশ করে। এ সময় আনুশকাকে জানা/য়, বাসায় ঢুকে ফোন দিলে সে যেন বাসায় যায়। আনুশ/কা পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী সে ভাবেই ফার/দি/নদের ফাঁকা ফ্ল্যা/টে কোনো প্রকার বা/ধা ছা/ড়া/ই প্রবেশ করে।

আনু/শ/কার সঙ্গে তার দৈহিক সম্পর্কে/র পরিকল্পনা আগে থেকেই করে রেখেছি/লো ফারদিন। কিন্তু আনুশকা জানতো তারা বাসায় গিয়ে কিছুক্ষণ গল্প করে পরবর্তীতে রাজ/ধানীর আ/গারগাঁওয়ে /ফা/রদি/নে/র ভো/টার আ/ইডি কার্ড সং/শো/ধন করতে যাবে। কিন্তু বাসায় যাওয়ার পরে কথা বলার এক পর্যায়ে /ফা/রদি/ন আ/নু/শ/কার সঙ্গে /শারী/রিক সম্পর্ক করে। /দৈ/হি/ক/ সম্প/র্কে/র এক পর্যা/য়ে/ আ/নু/শ/কার /অতি/মা/ত্রায় ভ্যা/জাই/নাল ব্ল্যাড ফ্লো শুরু হয়। এ সময় /ফার/দিন আ/নু/শ/কা/কে বা/থ/রু/ম থেকে ফ্রে/শ হয়ে/ আ/স/তে বলে। /আ/নুশ/কা /বা/থ/রু/মে যাও/য়ার /আ/গে/ই /খা/টে/র উপর পড়ে যায়। এ সময় প্র/থ/মে ফারদিন ভে/বেছি/লো আ/নুশ/কা /ভ/য়/ পেয়েছে। পরবর্তীতে কাছে গিয়ে দেখ/তে পায় আ//নু/শকা/র শ্বা/স/কষ্ট/ শুরু হয়েছে। এবং দাঁত লেগে গেছে।




এ সময় ফারদিন কি করবে বুঝতে না পেরে দ্রুত তাদের ব্যক্তিগত গাড়িতে তুলে আনোয়ার খান মডার্ন /হা/সপা/তা/লে/ নিয়ে যায়। নে/য়ার প/থেই /গাড়িতে /মা/রা/ যায় /আ/নুশকা। ফারদিনের /আ/ত্ম/বি/শ্বা/স/ ছিল সে আ/নু/শকাকে /বাঁ/চা/তে/ পারবে। তাই সে পালা/য়/নি। এবং /পর/ব/র্তী/তে যখন জানতে/ পারে আনুশ/কা আর/ বেঁ//চে/ নেই এ সম/য়/ সে /পা/লা/তে চাইলেও /পা/লা/নো/র/ সুযোগ পায়নি। হাসপাতালে আসার প/থেই ফারদিন /আনুশকার মা এবং ওর /বান্ধ/বীকে ফো/ন করে/ জা/না/য় আ/নু/শ/কা/ চে/ত/না /হা/রিয়ে/ ফেলে/ছে। এবং তার তিন বন্ধুকে জানায় যে, ফারদিন নিজেই অ/সুস্থ/, তাই হাসপাতালে আসতে হবে। পরব/র্তীতে কৌশলে /হাস/পা/তালের রে/জি/স্ট্রা/র খাতা/য় আনুশকার বয়স ১৭-এর পরিবর্তে ১৯ লেখায়।/ বন্ধুরা হাসপাতালে এসে দেখে ফা/রদি/ন মে/ঝে/তে বসে আছে। //ত/ত/ক্ষণে/ /তা/রা/ জেনে/ যা/য়/ /আ/নুশ/কা/ আ/র /বেঁ//চে/ নেই।


এদিকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এবং কলাবাগান থানার পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) আ ফ ম আসাদুজ্জামান ও পরিদর্শক (অপারেশন) ঠাকুর দাস মালো সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী /নি/ম্না/ঙ্গ ও পা/য়ু/প/থে আ/ঘা//তের চিণ্হ পাওয়া গেছে। তবে এ ঘটনার আগে আনুশকাকে নেশাজাতীয় কিছু খাওয়ানো হয়েছিল কি না, সে ব্যাপারে এখনও কিছু জানা যায়নি।