স্বামী দীর্ঘদিন সুদূর প্রবাসে থাকার সুবাদে স্ত্রীর প্রতি নজ/র পড়ে মাদারীপুর সদর উপজেলার একই রঘুরামপুর গ্রামে বসবাসরত মো. দীন ইসলাম রাঢ়ীর। এরপর একদিন সুযোগ বুঝে প্রবা/সী/র স্ত্রীর গো/স/লে/র দৃশ্য ভি/ডি/ও ধারণ/ করে /কু/-প্র//স্তাব দিতে থাকেন তিনি। কিন্তু তার এ প্রস্তা/বে রা/জি না হওয়ায় /জো/র /পূ/র্ব/ক তাকে অ/নৈ/তি/ক কা/ঝে বা/ধ্য ক/রা/র /অভিযোগ ওঠে। এই ঘটনায় মা/দারী/পুর আদালতে একটি মা/ম/লা হলেও পুলি/শ অ/ভি/যু/ক্ত/কে গ্রে/প্তা/র করেনি বলে/ও অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীর পরিবার।
স্থানীয় ও/ মা/ম/লা সূত্রে জানা গেছে, মাদারীপুর সদর উপজেলার রঘুরামপুর গ্রামের এক গৃ/হব/ধূ/র /গো/স/লের /দৃ/শ্য/ মো/বা/ইলে/ ভি/ডি/ও/ ক/রে/ন একই এলা/কার মো. দীন ইসলাম রাঢ়ী (৩৭) নামে এক যুবক। সেই দৃশ্য স্বা/মী/র কাছে ও ফেসবুকে প্রকাশের //ভ//য়/ দে/খি/য়ে/ গত বছরের ১৩ নভেম্বর ওই না/রীে সাথে অনৈতিক করেন তিনি। এরপর ওই নারীকে বিভিন্ন সময় //শা/রী//রি/ক স/ম্প//র্কে জা/ড়া/তে/ বা/ধ্য/ ক/রে/ন মো. দীন ইসলাম। গত বছর ১৭ নভেম্বর মাদারীপুর আদালতে মা/ম/লা/ দায়ের করেন ভুক্তভোগী নারী। আদালত /মা/ম/লা/টি/ তদ/ন্তপূ/ক আইনগত ব্যবস্থা /গ্র/হ/ণে/র নি/র্দে/শ দেন।


ওই নারী বলেন, গোসলের ছবি ও /ভি/ডি/ও দে/খিয়ে আ/মাকে ব্লা/ক/মে/ই/লিং/ করে এ/কা/ধি/কবা/র /শা/রী/রি//ক/ স/ম্প/র্ক /ক/রে/ছে/ন/ দী/ন/ /ইস/লাম/। সেই ভি/ডি/ও স্বা/মী/র কাছে /পা/ঠি/য়ে/ আ//মা/র/ সুখে/র সং/সার /ধ্বং/স/ করে/ দিয়েছেন তিনি। আমার চার বছরের সন্তানের মু/খের দিকে তাকিয়ে এখনও বেঁ/চে আছি।



এদিকে এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নাসির উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা তিনি সংবাদ মাধ্যমকে জানান, মাম/লাটি তদন্তাধীন রয়েছে। যেকারনে এ বিষয়ে তিনি বিস্তারিত বলতে রাজি হননি। তবে আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, এ ব্যাপারে শিগগির আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হবে। এবং একই সাথে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।