গত ৬ বছর পূর্বে কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার দিয়াডাঙ্গা গ্রামের সুলতান আহমেদের বাড়িতে মধ্য/রা/তে /হা/ম/লা// চালায় এক/দল মু/খো/সধা/রী। এ ঘটনায় ঐ রাতে একই পরিবারের ৪ জন /নি/হ/ত/ হলে অভিযুক্তের বি/রু/দ্ধে থানায় একটি /মা/ম/লা দায়ের করে /নি/হ//ত সুলতানের ছেলে হাফিজুর রহমান। আর অবশেষে এ মামলার রায় ঘোষণা করলেন আদালত। জানা গেছে, এই মামলায় ৬ জনের /মৃ//ত্যু/দ/ন্ডে/র আদেশ দিয়েছে আদালত। /মা/ম/লা/য় ৭ আসা/মির ম/ধ্যে একজন খা/লাস ও /মৃ//ত্যু//দন্ড/প্রাপ্ত এক /আ/সামি প/লাত/ক রয়েছে।
মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আব্দুল মান্নান এ রায় প্রদান করেন। রায় ঘোষণার পরপরই আসামিরা কাঠগরা ভাঙচুর করে বিচারককে অক/থ্য ভা/ষায় /গা/লি/গা/লা/জ ক/রে। পরে পুলিশ তাদের নিবৃত করে কারাগারে নিয়ে যায়।

/মা/ম/লা/য় ৭/ আ/সামির মধ্যে মমতাজ উদ্দিন, নজরুল ইসলাম মজনু, আমির হামজা, জাকির হোসেন, জালাল গাজি, হা/সমত আলীকে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়। এ/রম/ধ্যে /জালা/ল গাজি পলা/তক রয়েছে। অপ/র আসামি নাইনুল ইসলা/মকে খালাস দে/য় আদালত।

/মা/ম/লা/য় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি ছিলেন, এ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন এবং আসামি পক্ষের আইনজীবি ছিলেন এ্যাডভোকেট আজিজুর রহমান দুলুসহ ৫ আইনজীবি।


/মা/ম/লা সুত্রে জানা যায়, আসামি মমতাজ উদ্দিনের সাথে ছোট ভাই /নি/হ//ত/ সু/লতা/ন আ/হ/মেদের বি/রোধ ছিল//। মমতা/জ উদ্দিন সুলতান আ/হমে/দ /নি//হ//তে/র জন্য বাকী দন্ড/প্রা/প্ত আসামিদের ৫ লাখ টাকা ও একবিঘা জ/মি দেয়ার /চু/ক্তি/তে ভাড়া করে।


এদিকে এ মা/ম/লা/য় আদালতের রায় ঘোষণার পর সন্তুষ্ট প্রকাশ করে / /নি/হ/ত/দের স্বজন রফিক আহমেদ গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, আদালতের এ রায়ে অত্যন্ত সন্তুষ্ট হয়েছেন তারা। তাই তিনি চান, এ রায় যতে খুব শীঘ্রই কার্যকর করা হয়।