চীনের উহান প্রদেশ থেকে ছড়িয়ে পড়া মহামারী ভাইরাসের তাণ্ডবে বিশ্বের অন্যান্য দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশেও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আ/ক্রা/ন্ত ও প্রা/ণ/হা/নির সংখ্যা। জানা গেছে, বাংলাদেশের ইতিহাসের প্রথ/মবারের মতো এক দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৫,১৮১ জন, এবং নতুন করে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন আরও ৪৫ জন। ফলে এ ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে সরকারের পক্ষ থেকে ১৮টি নির্দেশনা জারি করা হলেও সাধারণ ছুটি দেয়ার কোনো চিন্তা-ভাবনা আপাতত নেই বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।
সোমবার (২৯ মার্চ) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় করোনা সংক্রমণ রোধে ১৮টি নির্দেশনা জারি করা হয়। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী এসব নির্দেশনা সাংবাদিকদের পড়ে শোনান।

সাধারণ ছুটি দেয়ার কোনো চিন্তা-ভাবনা সরকারের আছে কিনা- জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ’এ পর্যন্ত আমাদের এ রকমের কোনো সিদ্ধান্ত নেই, সাধারণ ছুটি দেয়ার ব্যাপারে এ পর্যন্ত কোনো আলোচনা হয়নি।

’আমরা কাজ করেছি, সাংবাদিকরা মাঠে ছিলেন, অনেকে আক্রান্ত হয়েছেন। অনেকে সতর্ক থাকায় এখন পর্যন্ত ভালো আছেন। সেক্ষেত্রে আমাদের কার্যক্রম চলতে থাকবে। এখন পর্যন্ত সাধারণ ছুটি বা ওই ধরনের চিন্তা-ভাবনা নেই। তবে আমরা সতর্ক হলে এটাকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারব।’

গত বছরের মার্চ মাসের শুরুতে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী প্রথম ধরা পড়ে। পরিস্থিতি ক্রম অবনতির দিকে যেতে থাকলে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এরপর দফায় দফায় ছুটি বাড়তে থাকে। সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী টানা ৬৬ দিনের ছুটি ৩০ মে শেষ হয়।


এদিকে দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৬ লাখ ৮৯৫ জন, এবং এ ভাইরাসের বিষাক্ত ছোবলে প্রাণ হারিয়েছেন ৮ হাজার ৯৪৯ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৫ লাখ ৩৮ হাজার ১৮ জন। যেহে/তু ফের আ/ক্রা/ন্ত ও /মৃ/ত্যু/র সংখ্যা আবা/রও বাড়ছে, সেহেতু সবাইকে সতর্কতামূলক নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছে প্রশাসন।