পিএইচডি শেষ করে দেশে ফেরার ইচ্ছা ছিল নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক অর্পিতা রায়ের। কিন্তু সে ইচ্ছা পূরণ হওয়ার আগেই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হলো তাকে। জানা যায়, নিউজিল্যান্ডের একটি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মাত্র ৩০ বছর বয়সে তার এ অকাল মৃত্যু রীতিমতো মেনে নিতে পারছেন না কেউ।
তিনি পিএইচডির জন্য নিউজিল্যান্ডে অবস্থান করছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় তিনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরবর্তী সময়ে হাসপাতালে নেওয়া হলে অবস্থার অবনতি হয়। আইসিউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নোবিপ্রবির মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ বলেন, অর্পিতা রায় আজ (১২ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে না ফেরার দেশে চলে গেলেন। তিনি নিউজিল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব ওটাগোতে পিএইচডি শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি (অর্পিতা রায়) হঠাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বলে জানান অধ্যাপক ফিরোজ।



এদিকে অর্পিতা রায়ের মৃত্যুর খবরে রীতিমতো কান্নায় ভেঙে পড়েছেন পরিবারের সদস্যরা। কোনো ভাবেই এ অকাল মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না কেউ। অন্যদিকে অর্পিতা রায়ের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে পরিবার-স্বজনদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।



পিএইচডি করে দেশে আসা হলো না অর্পিতা রায়ের, পাড়ি জমালো না ফেরার দেশে
Logo
Print

সারা দেশ Hits: 1162

 

পিএইচডি শেষ করে দেশে ফেরার ইচ্ছা ছিল নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক অর্পিতা রায়ের। কিন্তু সে ইচ্ছা পূরণ হওয়ার আগেই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হলো তাকে। জানা যায়, নিউজিল্যান্ডের একটি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মাত্র ৩০ বছর বয়সে তার এ অকাল মৃত্যু রীতিমতো মেনে নিতে পারছেন না কেউ।
তিনি পিএইচডির জন্য নিউজিল্যান্ডে অবস্থান করছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় তিনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরবর্তী সময়ে হাসপাতালে নেওয়া হলে অবস্থার অবনতি হয়। আইসিউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নোবিপ্রবির মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ বলেন, অর্পিতা রায় আজ (১২ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে না ফেরার দেশে চলে গেলেন। তিনি নিউজিল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব ওটাগোতে পিএইচডি শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি (অর্পিতা রায়) হঠাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বলে জানান অধ্যাপক ফিরোজ।



এদিকে অর্পিতা রায়ের মৃত্যুর খবরে রীতিমতো কান্নায় ভেঙে পড়েছেন পরিবারের সদস্যরা। কোনো ভাবেই এ অকাল মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না কেউ। অন্যদিকে অর্পিতা রায়ের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে পরিবার-স্বজনদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।



Template Design © Joomla Templates | GavickPro. All rights reserved.