গত বুধবার (১৪ অক্টোবর) রাত প্রায় ৩ টার দিকে প্রতিবেশী এক নারীর কল পেয়ে অস্ট্রেলিয়ায় সিডনির পশ্চিমাঞ্চলে বাসা থেকে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এক তরুনীর /মৃ/ত/দে/হ/ উদ্ধার করে দেশটির পুলিশ প্রশাসন। ইতিমধ্যে এ ঘটনায় তার স্বামীকে আটক করে হেফাজতে নিয়েছে পুলিসজ। জানা গেছে, দীর্ঘ দিন ধরেই স্বামীর সাথে তেমন একটা বনিবনা হচ্ছিল না তার। তাইপ্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, স্ত্রী সাবাহকে /হ//ত্যা/ করেছেন স্বামী কিউরটন।

অস্ট্রেলীয় সংবাদমাধ্য এবিসি জানায়, ২৩ বছর বয়সী সাবাহ হাফিজ একজন উঠতি মডেল। ঘটনাস্থলে গিয়েও পুলিশ তাকে /বাঁ/চা/তে/ পারেনি।


অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থী শায়লা হক তানজু জানান, সাবাহ হাফিজ ছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত।

শ্বেতাঙ্গ ছেলেকে বিয়ে করায় সম্ভবত বাবা-মায়ের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল না।

গোয়েন্দা কর্মকর্তা সিমন গ্ল্যাসার জানান, /নি//র্যা/ত/নে/র/ শিকার হয়েছিলেন সাবাহ হাফিজ।

তবে কোন /অ/স্ত্র/ দিয়ে তাকে /আ/ঘা/ত/ করা হয় সেটি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার সকালে সাবাহর ২৪ বছর বয়সী স্বামী অ্যাডাম কিউরটনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, গ্রেপ্তার করে তাকে পুলিশ ভ্যানে তোলা হচ্ছে। এ সময় তাকে বেশ রাগান্বিত দেখাচ্ছিল এবং স্ত্রীর নামে চিৎকার করছিলেন তিনি।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, স্ত্রী সাবাহকে /পি//টি/য়ে/ /হ//ত্যা/ করেছেন কিউরটন।



এদিকে এ বিষয়ে মৃত সাবাহ হাফিজর বাবা সোনাহ হাফিজের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি দেশটির এক সংবাদ মাধ্যমকে জানান, কিউরটনের সাথে তার কখনও দেখা বা সাক্ষাৎ হয়নি। তিনি ধারনা করেছেন, বিগত কয়েক বছর আগে তারা বিয়ে করেছেন।