ঢাকাই চলচ্চিত্রের একজন গুণী অভিনেতা জায়েদ খান। সময় একটু বেশি লাগলেও অভিনয়ে দিয়ে সবার মনে জায়গা করে তিনি। এই মুহুর্তে সিনেমার শুটিং নিয়ে অনেটা ব্যস্ত সময় পার করতে তাকে। তবে সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে গুণী এই অভিনেতার মানহানি করার চেষ্টা করেছে কিছু অসাধু ব্যক্তিবর্গ। আর এরই জের ধরে বাংলাদেশ পুলিশের সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগে অভিযোগ করেছেন জায়েদ খান।

কয়েকটি ইউটিউব চ্যানেল এবং ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন তিনি। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ভার্চুয়াল কলে সময় নিউজকে এ তথ্য জানান জায়েদ খান নিজেই।

তিনি জানান, বেশকিছু ধরে তার নামে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য প্রচার করছে কয়েকটি ইউটিউব চ্যানেল। এতে তার সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে। এ প্রেক্ষিতে গোয়েন্দা পুলিশ উত্তর বিভাগের যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশীদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন এ অভিনেতা। তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত করে পুলিশ। তদন্তে অভিযোগের সতত্য পাওয়ায় অভিযুক্ত কয়েকজনকে ডিবি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

কাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন? উত্তরে জায়েদ খান বলেন, ইউটিউব চ্যানেল এমটি ওয়ার্ল্ড, দেশ বাংলা এবং সাদিয়া, রাইমা ইসলাম শিমুসহ কয়েকজনের নামের অভিযোগ করেছি। তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

জায়েদ খান আরও বলেন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কেউ কেউ আমাদের নাম মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য ছড়াচ্ছে। এগুলো আমাদের জন্য মানহানিকর। শিল্পীদের বিরুদ্ধে কেউ যেন মিথ্যা এবং বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়াতে না পারে তাই লিখিত অভিযোগ করেছি। আমার অভিযোগটি তদন্ত করছেন সাইবার ক্রাইম বিভাগের এডিসি মনিরুল ইসলাম।


এর আগে জামাল পাটোয়ারির নামেও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫ ও ২৯ ধারাসহ ২০১৮ সালের পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে এ মামলা করেন জায়েদ খান। গত বছর ১৪ আগস্ট তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেছিল। ওই মামলায় জামাল পাটোয়ারি জামিনে আছেন।

দীর্ঘ এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বাংলা বড় পর্দায় বেশ জনপ্রিয়তার সাথেই অভিনয় করে যাচ্ছেন জায়েদ খান। তার অভিনীত প্রথম সিনেমা ’ভালবাসা ভালবাসা’, যা মুক্তি পায় ২০০৮ সালে। এদিকে করোনা -কালীন এ সংকটময় পরিস্থিতির ফলে দীর্ঘ বিরতির পর আবারও অভিনয়ে নিয়মিত হয়েছেন তিনি।