বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারী এ ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে সর্বদা মাস্ক ব্যবহার অত্যান্ত জরুরী। কেননা এ পর্যন্ত দেখা গেছে, মাস্ক ব্যবহারের ফলে অনেকই এ ভাইরাসের হাত থেকে বেঁচে ফিরেছেন। এছাড়া বিশেষজ্ঞরা প্রথম থেকেই বলে আসছে, মহামারী এ ভাইরাসে হাত থেকে বাঁচতে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। তবে এদিকে আজ মাস্ক ব্যবহার নিয়ে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আব্দুল মান্নান বলেছেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ঘরের বাইরে ও অফিস-আদালতে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করে মন্ত্রণালয় থেকে পরিপত্র জারি করা হয়েছে। মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। মাঠপর্যায়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ এ ব্যাপারে কঠোর ভূমিকা পালন করবে।
মাস্ক পরার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, আমার স্ত্রীকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি গিয়েছিলাম। সেখানে এক আত্মীয়ের মাধ্যমে আমার স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর করোনায় তার মৃ’ত্যু হয়। সেখানে ওই আত্মীয় (নারী) এবং আমার স্ত্রী মাস্ক ছাড়া ছিলেন। একে-অপরের সঙ্গে মাস্ক ছাড়া মিশেছেন। মূলত ওই আত্মীয়ের কাছ থেকে আমার স্ত্রী সংক্রমিত হন। আমার স্ত্রী মা’রা গেলেও ওই আত্মীয় এখন সুস্থ। এখন আমার কাছে বার বার মনে হয় মাস্ক পরিহিত থাকলে আমার স্ত্রীকে হারাতে হতো না। আমরা মানুষকে সচেতন করছি। কোনো অবস্থায়ই মাস্ক ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না। মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে আরও কঠোর হবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।


শনিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শন ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্য সচিব।


তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক পরিবর্তনসহ একটি বিব্রতকর ও কঠিন সময়ে নতুন দায়িত্ব পেয়েছি। আশা করি সততা ও দেশপ্রেম নিয়ে দায়িত্ব পালন করব।

কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্স সঙ্কটের সমাধান করা হবে জানিয়ে স্বাস্থ্য সচিব আব্দুল মান্নান বলেন, এ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করছে। গত তিন মাসে ১০ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ পেয়েছেন। মাঠপর্যায়ে পদায়নে কিছু বৈষম্য রয়েছে বলেই চিকিৎসক সঙ্কট আছে। জেলার বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে মানুষ স্বাস্থ্যসেবা নিতে গিয়ে যেন হয়রানির শিকার না হন, বিষয়টি নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসক ও সিভিল সাজনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।


দিন দিন যেভাবে দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়তে, তাতে করে এখন থেকে যদি মাস্ক ব্যবহার করা না হয় তাহলে ভবিষ্যতে আমাদের আরও বড় কোনো বিপদের মুখোমুখি দাড়াতে হতে পারে। অবশ্য দেশে আরও আগে মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক করা উচিত ছিল সরকারের। তারপরও এখানে সরকারের কোনো দোষ নেই, দোষ আমাদেরই।