সম্প্রতি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি নিয়ে সারাদেশজুড়ে চলছে ব্যাপক শোরগোল। চমকপ্রদ বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে বিভিন্ন প্র‍তিষ্ঠান থেকে লোন নিয়ে ইভ্যালিতে লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে প্রতারিত হয়েছেন অনেকেই। আর এরই জের ধরে সকল ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে দেশবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছে প্রশাসন।
তবে এরই মধ্যে এবার বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি নিজেই জানালেন যে, ই-কমার্সে অর্ডার দিয়ে তিনি নিজেও প্রতারিত হয়েছেন।


তিনি বলেন, একটি ই-কমার্স সাইটে কোরবানি ঈদের জন্য গরু অর্ডার দিয়ে তিনি কাঙ্ক্ষিত গরু পাননি।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, গেল কোরবানির ঈদের আগের কোরবানি ঈদে আমি একটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান উদ্বোধনকালে একটি গরুর জন্য এক লাখ টাকা দিয়েছিলাম। কিন্তু আমাকে যে গরুটি দেখিয়েছিল, আমি সেটি পায়নি। আমি নিজেই অর্ডার করে প্রতারিত হয়েছিলাম। একটি জিনিস নতুন করে চালু করলে, সেটা নিয়ে সমস্যার সৃষ্টি হয় তার ভুক্তভোগী আমি নিজেই।


আজ রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের সম্মেলন কক্ষে ’প্রতিযোগিতা আইন বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাজারে সুষ্ঠু প্রতিযোগিতাপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টিতে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) ভূমিকা’ শীর্ষক কর্মশালায় তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপারসন মফিজুল ইসলাম বলেন, ২০২০ সালের নভেম্বরে ইভ্যালির বিরুদ্ধে /মা/ম/লা করা হয়েছে কমিশনের পক্ষ থেকে। মামলাটা আদালতে চলমান। শিগগিরই রায় হবে।



এদিকে ইভ্যালিতে লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে আজ পথে পথে ঘুরতে হচ্ছে অনেককেই। কথা ছিল, বিনিয়োগের মাত্র ১৫-৪৫ দিনের মধ্যেই পণ্য হস্তান্তর করা হবে। কিন্তু মাসের পর মাস কেটে গেলেও পণ্য না পেয়ে রীতিমতো হতাশায় দিন কাটছে অনেকের। দাবি একটাই হয়তো পণ্য, নয়তো বিনিয়োগকৃত টাকা ফেরত দিলেই তারা খুশি।